রাজ্য শহর

অর্থমনর্থম…

গৌতম বন্দ্যোপাধ্যায় (বরিষ্ঠ সাংবাদিক )

ডিজিটল ডেস্ক (কোলকাতা) – একটি অদ্ভুত কাণ্ড ঘটিয়েছেন এক দক্ষিণী অভিনেত্রী। এই তরুণী অভিনেত্রী দু’কোটি টাকার বিজ্ঞাপনের কাজ ফিরিয়ে দিয়েছেন। আজকের দিনে যখন টাকার জন্য মানুষ নিজেকে বিক্রি করে দিতেও পিছপা নয় তখন এরকম ঘটনা দেখলে আশ্চর্য না হয়ে পারা যায় না।

মালয়লম ছবিতে বর্তমানে প্রথম সারিতে রয়েছেন সাই পল্লভী। প্রেমাম এদং ফিদা- সাই পল্লভীর সাম্প্রতিক দুটি চলচ্চিত্র বিশাল সাফল্যের পর তাঁর কাছে প্রচুর কাজের সুযোগ আসতে থাকে। বিভিন্ন নামী সংস্থার বিজ্ঞাপনের কাজের সুযোগও তাঁর কিছু কম নয়। এইসময় মুখ ফর্সা করার ক্রিমের বিজ্ঞাপনের জন্য তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে একটি সংস্থা। পারিশ্রমিক হিসাবে বরাদ্দ ছিল দু’কোটি টাকা। সোজাসুজি না করে দেন তিনি। রঙ ফর্সা করার ক্রিমের বিজ্ঞাপনে সাই পল্লভী অভিনয় করবেন না বলে জানিয়ে দেওয়ায় স্বভাবতই সামাজিক মহলে অনেকেই জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকিয়েছেন। অভিনেত্রীর বক্তব্য, এই বিজ্ঞাপন করলে সামাজে একটা ভিন্ন বার্তা যেত। তাঁর রঙ ফর্সা ঠিকই কিন্তু তাঁর বোন, পূজা শ্যামলা রঙের। তিনি নিজে দেখেছেন, কীভাবে শারীরিক রঙের কারণে অন্য একজন নারী হীনমন্যতায় ভুগে থাকেন। আজ যখন এই ভারতে কখনও ধর্ম, কখনও বর্ণ দিয়ে মানুষের বিচার হচ্ছে তখন এই তরুণী অভিনেত্রীর দৃষ্টান্ত অনুকরণযোগ্য। প্রধানত দু’টি কারণে তাঁর অভিনন্দন প্রাপ্য।

প্রথমত, তাঁর এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে তিনি সমাজের একটি দীর্ঘদিনের লালিত কুঅভ্যাসকে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন। আজকের দিনে বহু সময় যখন শুধু রঙের বিচার করে নারীদের সম্মান বিবেচিত হয়, তখন তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, বিদেশীদের কাছে যেমন ভারতীয়রা জানতে চায় না কেন তারা ফর্সা, তেমনই ভারতীয়রা কেন শ্যামলা, সে প্রশ্নের জবাব দেওয়ার দায় নেই ভারতীয়দের। তিনি এমন এক প্রত্যয়ের সঙ্গে নিজের বিশ্বাসের কথা জানিয়েছেন যা থেকে আন্দাজ পাওয়া সম্ভব, আজকের  নবীনদের কাছ থেকে প্রবীণদেরও অনেক কিছু শিক্ষণীয় আছে। বৃদ্ধ, পঙ্গু, অসমর্থ সমাজে নবীন রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন আজ বড়ই বেশি।     

দ্বিতীয়ত, তিনি এক বড় মাপের টাকার লোভ এককথায় পরিত্যাগ করে প্রমাণ করলেন, আজকের দুর্নীতির আবহে থেকেও টাকার হাতছানি এড়িয়ে চলা যায়। যখন সারা দেশের লোক দেখছে কীভাবে একশ্রেণির রাজনীতিক টাকার লোভে পড়ে নিজের আদর্শের জলাঞ্জলি দিচ্ছেন, কীভাবে সমাজের বিভিন্ন উচ্চতর আদর্শের পেশায় থেকেও একশ্রেণির ডাক্তার বা শিক্ষক বা ব্যবসায়ী বা সাংবাদিক বা ম্যানেজার অবলীলায় নিজেদের চরিত্রের অবনমন ঘটাচ্ছেন, তখন একজন নবীন অভিনেত্রী অবহেলায় টাকার লোভ দমন করে কিছু সময়ের জন্য হলেও সমাজে সুরভিত মলয় বাতাস বইয়ে দিলেন ।

এই প্রসঙ্গে তাঁর কথাগুলিও খুব মূল্যবান। তিনি বলেছেন, অত টাকা নিয়ে তাঁর বিশেষ কিছু করার নেই। তিনি তো বাড়ি ফিরে খাবেন দুটি অথবা তিনখানি রুটি অথবা সামান্য একটু ভাত। এর চেয়ে বেশি তাঁর প্রয়োজন নেই। তিনি বলেছেন, তাঁর পাশে যাঁরা আছেন, তাঁদের মনের আনন্দ তাঁর কাছে অনেক বেশি দামী। 

One Reply to “অর্থমনর্থম…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *