রাজ্য

আপনার দূষিত শহরের তালিকায় আসানসোল-দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চল

দুর্গাপুর ও আসানসোলঃ দূষণের জেরে প্রকৃতি তার ভারসাম্য হারাতে বসেছে। আশঙ্কা পরিবেশ বিজ্ঞানীদের। এখনই বিষয়টি নিয়ে সচেতন না হলে বিপদের মুখে পড়বে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম। বিষয়টি নিয়ে রীতিমত উদ্বিগ্ন কেন্দ্র। বিশেষ করে দেশের বড় বড় শহরগুলির বায়ুদূষণের মাত্রা নিয়ে। গত কয়েক বছর ধরে রাজধানী দিল্লির দূষণ রীতিমত মাথা ব্যাথার কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে পরিবেশ মন্ত্রকের কাছে। ইতিমধ্যেই দূষণ নিয়ন্ত্রণের জন্য নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচী। আগামী ৫ বছরের মধ্যে দেশে বায়ুদূষণের পরিমাণ ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কমিয়ে আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল ক্লিন এয়ার প্রোগ্রাম (এনসিএপি)-এর মাধ্যমে।

এর জন্য দেশের ১২০ টি শহরকে চিহ্নিত করে এয়ার পলিউশন নজেল অ্যাসেসমেন্ট (আপনা) নামে শহর ভিত্তিক বিশেষ কর্মসূচীর পরিকল্পনা করা হয়েছে। ২০১৭ সালে ২০ টি শহরকে এই কর্মসূচীর আওতায় এনে প্রকল্প শুরু করা হয়েছিল। ২০১৯ সালে আরও ৩০ টি শহরকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রাজ্যের চারটি বড় ও দূষিত শহর- কলকাতা, হাওড়া, দুর্গাপুর ও আসানসোল। আপনার বিজ্ঞানীরা শহরগুলির এই দূষণের কয়েকটি কারন চিহ্নিত করেছেন। তাঁদের মতে একটি শহর মূলত পরিবহণ, আবাসন, শিল্প, ধূলিকণা, বর্জ্য, ডিজেল চালিত যান, জেনারেটর ও ইটভাটার কারণে দূষিত হচ্ছে। এনসিএপির পর্যবেক্ষণে দেখা গিয়েছে রাজ্য তথা দেশের কাছে শিল্পাঞ্চল হিসেবে পরিচিত দুর্গাপুর-আসানসোল মূলত কারখানা থেকে নির্গত গ্যাস থেকে দূষিত হচ্ছে। এর পাশাপাশি রয়েছে সঠিক নিময় মেনে কয়লা উত্তোলন ও পরিবহনের ব্যবস্থা না করা। আপনা প্রকল্পের বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন আপাতত দেশের ৫০ টি শহরের দূষণজনিত ডেটাবেস তাদের কাছে রয়েছে। এরফলে দূষণের নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনায় সুবিধা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *