শহর

এক হাজার কোটি টাকা কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে পশ্চিম বঙ্গ রাজ্য সরকারকে আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

ডিজিটল ডেস্ক, কোলকাতাঃ ‘অম্ফানের’ তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ঘুরে দেখলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর কপ্টারে সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। হাওয়া পথে ঘুরে দেখলেন ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলি, পরে বসিরহাটে বৈঠকে বসে পর্যালোচনা করেন এই মহাদুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এইমুহূর্তে এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মোকাবিলার জন্য কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে রাজ্য সরকারকে ১০০০ কোটি টাকার আর্থিক সহযোগিতার কথা জানান। পরবর্তী পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে আর্থিক প্যাকেজে আর কি সহযোগিতা কেন্দ্রের পক্ষে করা হবে তা পরে জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

অম্ফান ঘূর্ণি ঝড়ে পশ্চিম বাংলায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে শহর কোলকাতা সহ দুই ২৪ পরগনা, তারপর হাওড়া, দুই মেদিনীপুর, নদীয়া, হুগলী, মুর্শিদাবাদ। বাকি জেলায় ক্ষতির পরিমাণ এই জেলাগুলি থেকে তুলনামূলক অনেক কম। অম্ফান ঘূর্ণিঝড়ে রাজ্য সরকারের দেওয়া পরিসংখ্যানে মৃত্যু হয়েছে মোট ৮৬জনের, তার মধ্যে বিদ্যুৎপৃষ্ঠ হয়ে মারা গেছেন ২২জন, গাছে চাপা পড়ে মারা গেছেন ২৭জন বাকিরা দেওয়াল চাপা পরে ও ছাদের টালি বা টিন চাপা পড়ে মারা যান।

ফিরহাদ হাকিম, পুরমন্ত্রী

শহর কোলকাতায় বিভিন্ন জায়গায় বুধবার থেকেই বিদ্যুৎ নেই, যারফলে দেখা দেয় পানীয় জলের সঙ্কট। বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা এই নিয়ে বিক্ষোভ দেখান। পুরমন্ত্রী ও কোলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন, “বড় ভয়ঙ্কর প্রাকৃতিক বিপর্যয় হয়েছে, কোলকাতা শহরের বিভিন্ন জায়গায় প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার গাছ পড়ে রয়েছে যা পরিষ্কার করার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু করে দেওয়া হয়েছে। যে হারে ক্ষতি হয়েছে তা রিবিল্ডিং করতে একটু সময় লাগবে, আমাদের কাছে কোন জাদুকরের ছড়ি নেই যা দিয়ে আমি মুহূর্তে সব ঠিক করে দেবো, সুতরাং সময় একটু লাগবেই।”

দিলীপ ঘোষ , বিজেপির রাজ্য সভাপতি

অন্যদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, “প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলার দায়িত্ব রাজ্য সরকারকেই নিতে হবে কারণ ভালো কিছু হলে রাজ্য সরকার নিজেদের গুণগান করেণ সেই কারণে এই বিপর্যয় মোকাবিলার দায়িত্বও রাজ্য সরকারের এবং দ্রুত বিদ্যুত্যের ব্যাবস্থা করতে হবে, কারণ মানুষ পানীয় জল পাচ্ছেনা আজ দু দিন হয়ে গেল।”

অপরদিকে এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে মৃতের পরিবারদের ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করল কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। কেন্দ্রের তরফে প্রতিটি মৃতের পরিবার কে ২লক্ষ টাকা এবং রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ২.৫ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করা হয়।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *