জেলা মালদহ

শহরের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের কৃষ্ণপল্লি বাবুজি পাড়া জলমগ্ন, ক্ষোভ এলাকার বাসিন্দাদের, এই নিয়ে শুরু তৃণমূল-বিজেপির চাপানতর

প্রতিনিধি, মালদা

ইংরেজবাজার শহরের ২৯ নম্বর ওয়ার্ড কৃষ্ণপল্লি বাবুজি পাড়া এলাকা, বর্ষা মৌসুমে তিন থেকে চার ওয়ার্ডে জলমগ্ন অবস্থায় পড়ে থাকে। এই সময়ে এলাকার বাসিন্দাদের জলের উপর দিয়ে চলাফেরা করতে হয়। প্রত্যেক বর্ষায় একই চিত্র থাকে এলাকায়, এই নিয়ে তাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এলাকার বাসিন্দা ওহীর রহমান চৌধুরী জানান, প্রতিবছর বর্ষার সময় তিন থেকে চার মাস ওয়ার্ডে জলমগ্ন অবস্থায় আমাদের পড়ে থাকতে হয়। জলের উপর দিয়েই আমাদের চলাফেরা করতে হয়, নিকাশি ব্যবস্থা বেহাল, এর পাশপাশি এলাকায় পানীয় জলের কোন রকম ব্যবস্থা নেই। পৌরসভা এলাকায় থেকেও পৌরসভার সুযোগ-সুবিধা থেকে আমরা বঞ্চিত। এলাকার কাউন্সিলর থেকে শুরু করে পৌরসভা চেয়ারম্যান,  ইংরেজবাজার ভিডিও থেকে শুরু করে মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তরও বহুবার চিঠি করেছি কিন্তু এখনো পর্যন্ত সমস্যার সমাধান হয়নি।

আমাদের এলাকায় ৪০টি পরিবার এই সমস্যার মধ্যেই বসবাস করছেন। এলাকার আরেক বাসিন্দা সাবিনা বিবির অভিযোগ এলাকার কাউন্সিলর এই বিপদের সময় একবারও এসে আমাদের সাথে দেখা করেন না। জল বেশি হলে আমাদের ঘরে থাকা যায় না সেসময় ঘর বন্ধ করে অন্য কোন জায়গায় ভাড়া হিসেবে থাকতে হয়। আবার জল কমে গেলে বাড়িতে ফিরে আসতে হয় আমাদের, বর্ষার এই সময় তিন থেকে চার মাস জলমগ্ন অবস্থায় আমাদের দিন কাটাতে হয়, বাচ্চাদের নিয়ে কাজ কর্ম করতে হয় চলাফেরা করতে হয় খুব অসুবিধের মধ্যে এই কয়েক মাস কাটাতে হয়। এলাকার বসবাসকারি সমস্ত পরিবারগুলি একত্রিত হয়ে চাঁদা তুলে এই রাস্তাটিতে ইট ফেলা হয়ে, কিন্তু নিকাশি ব্যাবস্থা না থাকার কারণে ইট ফেলেও কোন লাভ হচ্ছে না। আমাদের দাবি অতিশীঘ্র এই রাস্তার কাজ করা এবং পানীয় জলের ব্যবস্থা করা। অন্যদিকে ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুমিতা সরকার দাসের স্বামী নিবাশ দাস সমস্যার কথা স্বীকার করে বলেন, তার হাতে কিছু করার নেই বহুবার তিনি নিজে উদ্যোগে ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান কে বলেছেন পাশাপাশি নিকাশি ব্যবস্থা বিষয়ে তিনি জানান এলাকায় বিলগুলি মাটি ফেলে ভরাট করা হচ্ছে সে বিষয়েও চেয়ারম্যান কে বলা হয়েছে কিন্তু এখনো পর্যন্ত সমস্যা সমাধান হয়নি।

এই বিষয়ে উত্তর মালদা বিজেপি সাংসদের মূল অভিযোগ, ইংরেজবাজার শহরের নিকাশি ব্যাবস্থা বেহাল হওয়ার মূল কারণ জমি মাফিয়ারা। তারা মাটি ফেলে জমি ভরাট করছে এবং ইংরেজবাজার পৌরসভা জেনেও কিছু করছেন না। শুধু ২৯ নম্বর ওয়ার্ড জলমগ্ন নয়, আগামী দিনে শহরের বিস্তীর্ণ এলাকায় জলমগ্ন হয়ে পড়বে। তিনি আরও বলেন, এই পৌরসভা নামেই পৌরসভা, পৌর নাগরিকরা পৌরসভার সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত, পৌরসভা পুরোপুরি ব্যর্থ। যদিও এই বিষয়ে ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান নীহার রঞ্জন ঘোষ জানান, বিষয়টি তাদের জানা আছে, লকডাউনের ফলে পৌর এলাকায় কাজ বন্ধ রয়েছে। ইতিমধ্যে ইংরেজবাজার শহরের ২৫ নম্বর ও ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের বিকাশের উপরে ৩৫ লক্ষ টাকার টেন্ডার পাস হয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই কাজ শুরু হয়ে যাবে, পৌরসভা সবসময় পৌর নাগরিকদের পাশে রয়েছেন বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *