জেলা পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান

নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় হাঙ্গামা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে।

সংবাদদাতা, অন্ডাল

অন্ডাল ব্লকের খাঁদরা সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একটি বাচ্চা প্রসবের পরপরই নবজাতক বাচ্চা মারা যাওয়ার ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় স্বাস্থ্য কেন্দ্র চত্তরে। পরে মৃত সন্তানের বাবা সহ স্থানীয় লোকজন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ। অন্ডালের পুরানো থানা রোডর সকরা মঠের বাসিন্দা নিহতের স্বামী রাজেশ পণ্ডিত জানান, ‘গত রবিবার ১৩ মে প্রসব ব্যথার কারণে তাঁর স্ত্রীকে রাত ৯ টায় খাঁদরা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। ভর্তি হওয়ার কিছু সময় পরে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। জন্মের পরে শিশুটি সম্পূর্ণ সুস্থ বলে জানানো হয়। কিন্তু বেশ কিছুক্ষণ পর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের নার্স জানান যে, শিশুটির স্বাস্থ্যের অবস্থা ভালো নেই এবং তাকে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। সে সময় তাঁর স্ত্রী অসহ্য যন্ত্রণায় ছিলেন বলে জানান রাজেশ পন্ডিত। তবুও তিনি স্ত্রী ও নবজাতক শিশুকে সরকারী গাড়ির সহায়তায় একা দুর্গাপুর বিধাননগর হাসপাতালে নিয়ে যান। গাড়িতে তাঁর সঙ্গে হাসপাতালের কোনও সহকর্মী বা নার্স ছিলেন না। দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালের চিকিত্সকরা প্রাথমিক চিকিত্সার পর শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন এবং তাঁরা জানান যে শিশুটি প্রায় এক ঘন্টা আগে মারা গিয়েছে। রাজেশ পণ্ডিত অভিযোগ করেন, তাঁর স্ত্রীর অসহনীয় প্রসব ব্যথার সমস তিনি চিকিৎসকদের অনুরোধ করে ছিলেন দরকারে অপারেশনের সাহায্যে ডেলিভারিটি করার জন্য। কিন্তু, তারা তাতে কান দেননি’। এই ঘটনার পর উত্তেজিত পরিবারের লোকজন সহ স্থানীয়রা খাঁদরা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পৌঁছে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন, ভাঙচুর করা হয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বলে অভিযোগ। স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচ পরিতোষ সোরেন এই বিষয়ে বলেন, ‘প্রতিদিন বহু নবজাতকের ডেলিভারি হয় হাসপাতালে। ওই মহিলার সন্তানের মৃত্যুর কারণ কি, তার সম্পর্কে তাঁর কোন স্পষ্ট ধারণা নেই। বিষয়টি তদন্ত করা হবে।  এই ঘটনায় যদি কোনও গাফিলতি থাকে তবে, দোষীরা উপযুক্ত শাস্তি পাবে’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *